How to increase your Subconscious Mind Power

How to Increase Your Subconscious Mind Power In Bangla

মস্তিস্ক হচ্ছে মানব দেহের এমনি একটা অংশ, যার মধ্যে লুকিয়ে আছে অসামান্য কিছু ক্ষমতা | কিন্তু বেশির ভাগ মানুষই আজ নিজের মস্তিষ্কের সেই  ক্ষমতাকে উপলব্ধি করতে পারছেনা |

একটা মানুষ চাইলে নিজের মস্তিষ্কের অবচেতন ভাগ কে কাজে লাগিয়ে জীবনে অনেক কিছুই achieve করতে পারে |

Subconscious mind হলো মস্তিকের সেই অংশ যেখানে আমাদের সমস্ত daily habit, Daily bad habits, past memories, যেকোনো ধরনের Emotion সঞ্চিত থাকে |6 Secret Techniques to Activate Subconscious Mind Power

বর্তমানে আজ আমরা যেই চরিত্রেরই মানুষ হইনা কেন তা আমরা সম্পূর্ণ মস্তিস্কের এই ভাগটির দাড়াই সম্ভব হয়েছে |

একজন সফল মানুষ হতে গেলে আমাদের প্রত্যেকেরই মস্তিকের অবচেতন ভাগকে কাজে লাগানো শিখতে হবে আর বাড়াতে হবে এর ক্ষমতাকে |

এবার তুমি হয়তো ভাবছ! সেটা কিভাবে সম্ভব?

কি করে একটা মানুষ নিজের মস্তিস্কের ক্ষমতাকে বাড়াতে পারবে?

দেখো, সেইসব points গুলি খুবই সহজ | যে কেউই চাইলে সেইসব points গুলিকে নিজের জীবনে apply করে সেটা বদলে ফেলতে পারে | কিন্তু সেটা রোজ follow করাটাই সব থেকে বড় challenge |

Subconscious mind-এর ক্ষমতাকে বাড়াতে পারলে  তোমার জীবনে কি কি benefit হতে পারে:

  1. খারাপ habit গুলি থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে |
  2. জীবনে নতুন কিছু ভালো habit তৈরী হবে |
  3. মন সর্বদা শান্ত থাকবে |
  4. বাজে চিন্তা মাথায় ঘুরপাক খাবেনা |
  5. ভয়, nervousness ইত্যাদি থেকে নিস্তার পাওয়া সম্ভব হবে |
  6. অতীতের খারাপ মুহুর্তের স্মৃতি ও ভবিষ্যতের অবাঞ্চিত চিন্তা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে এবং মন সর্বদা বর্তমানেই স্থির থাকবে |

যদি তুমি এইসব benefit গুলি পেতে চাও তাহলে তোমাকে পুরো আর্টিকেলটি পড়তে হবে একটু মন দিয়ে |

তো এবার যাক তুমি কিভাবে তোমার subconscious mind-এর ক্ষমতাকে বাড়াতে পারবে |

Tip No. 1: Always Try to Think Positive

Subconscious mind  বা অবচেতন মনের ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করতে হলে তোমায় Positive Mentality-এর মানুষ হতে হবে | এটা যেমন তোমার সহজ বলে মনে হচ্ছে তা কিন্তু একেবারেই নয় |

কারণ আমাদের পারিপার্শ্বিক পরিবেশ এমনই যেখানে সর্বদা positive থাকা সবার কাছেই ভীষণ কষ্টকর | এই যে তুমি ধরো, সমস্ত Newspaper আর Tv Serials যেভাবে মানুষের ভীতর negativity ঢুকিয়ে দিচ্ছে তাতে প্রত্যেকটা মানুষের কিন্তু Mentality নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ধীরে ধীরে |

তাই নিজের thinking process-কে change করতে হলে আর অবচেতন মনকে positive রাখতে হলে তোমাকে এইসব দেখা কিংবা শোনা বন্ধ করতেই হবে |

তুমি তার বদলে Google Playstore থেকে যেকোনো newspaper aap নামিয়ে নিয়ে নিজের পছন্দের মত category set করে খবর পরতেই পারো | যেমন আমার পছন্দের category হলো Science, automobile, travel ও Spirituality ইত্যাদি | আমি বিশেষ political based আর্টিকেল পড়া পছন্দ করিনা |

ঠিক আমার মতই তুমিও নিজের পছন্দের category set করে News পরতেই পারো | কিন্তু একটাই কথা সেটা যেন তোমার মনে কোনো negative effect না ফেলে | অপরদিকে Tv Serials-এর বদলে তুমি Youtube দেখতে পারো সেটা সব থেকে তোমার পক্ষে best হবে |

এবার তারপরেও যদি তোমার মনে নেগেটিভ চিন্তা চলতে থাকে তাহলে তুমি সেই চিন্তা গুলির থেকে ইতিবাচক দিকগুলিকে identify করার চেষ্টা করো |

Read More:- অবসাদ দূর করার ৭টি দুর্দান্ত উপায়

দেখবে তোমার মনে যেইসব সমস্যা তৈরী হচ্ছিল তা দ্রুত দূর হয়ে গেছে |

এছাড়াও নিজের মনে মনে Continuously নেগেটিভ কথা বলা বন্ধ করতে হবে | আর সেটা করবে কিভাবে সেটা জানার জন্য পরবর্তী পয়েন্টটি পড়তেই হচ্ছে একটু |

Tip No. 2: Practice Meditation

Meditation বা ধ্যান হলো এমন একটি সুন্দর ও শক্তিশালী মাধ্যম যার দ্বারা যেকোনো মানসিক সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে |

negative চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে ও মনকে শান্ত রাখতে একটি মানুষের প্রতিদিন meditation করা অতি জরুরি | সারাদিনের ব্যস্ততার সম্মুখীন হওয়ার আগে ঘুম থেকে উঠে অন্তত ৫ মিনিট ধ্যান করা অতি জরুরি |

আমরা যখন চুপ থাকার চেষ্টা করি তখন আমাদের মনে ভিতর অনবরত negative কথাবার্তা চলতে থাকে ঠিক এইরকমের অনেকটা-

  1. ইস রে! আমার আর জীবনে কি হবে?
  2. আমি তো কিছুই পারিনা
  3. আমার দ্বারা কিচ্ছু হবেনা
  4. কাল যদি আমি ঠিক সময়ের অফিসের মিটিংযে না পৌছাই তাহলে আমার চাকরি sure যাবে |
  5. জীবনে আমার আর বেঁচে থেকেই বা কি হবে? ইত্যাদি ইত্যাদি আরো কত কী না সব আবোল তাবোল চিন্তা করে থাকি |

আর এইসব বাজে চিন্তা থেকেই আমাদের মন আরো বিচলিত হয়ে যায় আর steers অনুভব করি |

meditation দীর্ঘদিন ধরে practice করলে একটা মানুষের, চিন্তাধারার আমূল পরিবর্তন আসে এবং চিন্তা ধারার পরিবর্তনের ফলে তার মস্তিকের অবচেতন ভাগের ক্ষমতাও ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায় |

এই বিষয়টি সেই ভালো করে বুঝতে পারবে যে রোজ এটি করে | তাই তুমি যদি এখনো পর্যন্ত meditation বা ধ্যান অনুশীলন করে না থাকো তাহলে আজ থেকেই অন্তত 2-5 মিনিট সেটা করা শুরু করে দেও এবং তারপর যখন ধীরে ধীরে তোমার সেটি অভ্যাসে পরিণত হয়ে যাবে তখন তুমি এর সময়সীমাকে বাড়াতে পারো |

আমি কথা দিতে পারি, এর ফল তুমি তিনমাস পর থেকেই পাওয়া শুরু করে দেবে |

Tip No. 3 Choose Your Own Decision

Decision হচ্ছে এমনই একটা জিনিস যা মানুষের ভাগ্যকে নির্ধারণ করতে সক্ষম | কিন্তু বর্তমানে আজ মানুষ অনেক ক্ষেত্রেই নিজের decision নিজেই ঠিক মত নিতে পারছেনা | তাদের মনের ভিতর সর্বদা একটা confusion-এর সৃষ্টি হচ্ছে |

আর তুমি নিশ্চই একটা জিনিস লক্ষ্য করেছ হয়তো যে, আজ বেশিরভাগ মানুষ তাদের নিজেদের জীবনের decision চাইলেও নিজে নিতে পারছেনা |

কারণ ভারতবর্ষ কিংবা বাংলাদেশের মত দেশে আজও বাবা-মা কিংবা আত্মীয়রা এটাই বিশ্বাস করেন যে একটা ছেলে কিংবা মেয়ে নিজেদের জীবনের decision নিজেরা নিতে অক্ষম |

তাদের মতে বাবা-মা কিংবা বয়সে অনেক বড় হয়ে যাওয়া মানে এটাই, যে তারা তাদের ছেলে-মেয়ে কিংবা ভাই বোনদের জন্য যা decision নেবেন তা সব ক্ষেত্রে একদম ঠিক হবে |

এটা ভাবা কিন্তু একদমই ঠিক নয় | কারণ প্রত্যেক মানুষের জীবন আলাদা, রুচি আলাদা, পছন্দ আলাদা এমনকি সমস্যাও আলাদা আলাদা |

তাই একটা Particular age-এর পর (১৮-২৪ বছর) প্রত্যেকটা মানুষের উচিত নিজের জীবনের decision নিজে নেওয়া |

তাই এবার থেকে নিজের জীবনের decision নিজেই নেওয়া শুরু কর | তুমি তোমার বাবা-মা কিংবা তোমার বাড়ির বাকি সদস্যদের বোঝাও যে তুমি জীবনে কি করতে চাও |

জানি বেপারটা খুব কঠিন, কিন্তু তা খুব একটা অসম্ভব নয় | আমি sure যে তারা তোমার বেপারটা নিশ্চই বুঝবেন |

Read More:- স্ট্রেস থেকে মুক্তির সহজ উপায়

নিজের জীবনের decision নিজে নিলে দেখবে তোমার ভিতর আত্মবিশ্বাসটাও কেমন বেড়ে গেছে | আর আত্মবিশ্বাস হলো এমন একটা মাধ্যম যার দ্বারা কোনো কঠিন কাজও আমাদের কাছে সহজ বলে মনে হয় |

কিন্তু সবশেষে একটাই কথা তোমাকে বলি, নিজের জীবনের Decision নিজে নেওয়া মানে এই নয় যে অন্যের কথার অবহেলা করবে | সবার থেকেই শেখার বা জানার আছে এটা সর্বদা মনে রেখো |

আর জীবনে এমন কোনো decision কখনো নিও না যার দ্বারা তুমি নিজের তো ক্ষতি করবেই তার সাথে পরিবার ও সমাজেরও | এমন decision নিও যাতে তোমার সাথে সাথে তোমার আশেপাশের মানুষ গুলোরও কল্যাণ হয় |

Tip No. 4 Visualization

কল্পনা করতে কার না ভালো লাগে আর সেই কল্পনা যদি বাস্তবে রুপান্তরিত হয়ে যায় তাহলে তো আর কোনো কথাই নেই | আচ্ছা! আমি যদি বলি তুমি তোমার কল্পনাকে বাস্তবে রুপান্তরিত করতে পারবে just তোমার Subconscious mind-কে এটা বিশ্বাস করিয়ে যে তুমি সেটা পেতে চাও তাহলে কি তুমি বিশ্বাস করবে?

হ্যাঁ, এটা সত্যি তুমি চাইলে নিজের কল্পনাকে বাস্তবে পরিণত করতে পারো Subconscious mind-এর মাধ্যমে |

বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার মাধ্যমে এটা জানা গেছে যে, আমাদের মস্তিস্কের Conscious ভাগের তুলনায় Subconscious ভাগ কমপক্ষে ১০০০ গুন বেশি শক্তিশালী | এই অংশটির এত ক্ষমতা যার কল্পনা করাটাও আমাদের কাছে অনেক সময় কঠিন ও অবাস্তব বলে মনে হয় |

Visualization হলো Law of attraction-এর সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় | এটা practice করার সব থেকে best সময় হলো ঘুমাতে যাওয়ার সময়টা | রাতে ঘুমিয়ে পড়ার আগে বিছানায় শুয়ে তুমি নিজের Carrier, goals আর জীবনের ইচ্ছাগুলোর কথা ভাব | তুমি কল্পনা করো যে তুমি সেইসব কিছুই পেয়ে গেছ এবং achieve করে ফেলেছ |

এটা দিনের পর দিন visualize করতেই থাকো এবং নিজের মনের ভিতরে এই বিশ্বাসটিকে আরো দৃঢ় করে ফেল | যত তোমার Vision clear হতে থাকবে সেইসব জিনিসকে achieve করার প্রতি, ততই তুমি নিজের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাবে তাড়াতাড়ি |

কিন্তু তুমি যদি হাজারও একটা লক্ষ্য নিয়ে visualize করতে থাকো তাহলে সেইক্ষেত্রে তুমি নিজেই Confuse হয়ে পরবে | তাই এই জিনিসটি করার আগে তোমার কাছে এটা clear হওয়া অবশ্যই প্রয়োজন যে তোমার আসল লক্ষ্যটা কি | তুমি কি achieve করতে চাও জীবনে? কেনই বা achieve করতে চাও | তাহলেই এর ফল পাবে অন্যথা নয় |

Visualization এর উপর আরো details-এ জানতে তুমি youtube-এ এই সম্বন্ধে বিভিন্ন ভিডিও দেখতে পারো |

Tip No. 5 Affirmation

মস্তিষ্কের অবচেতন অংশটির ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করতে Affirmation হলো আরেকটি দুর্দান্ত পদ্ধতি | প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর meditation শেষ করে নিজের ভিতরের positivity-কে ধরে রাখতে অন্তত ২০ বার নিজেকে এই কথাগুলি বলতে হবে:-

  1. আমি একজন positive thinker, আমি negative কিছুই ভাবিনা
  2. আমি নিশ্চই পারব সেইসব কিছুই achieve করতে যেইগুলি আমি হতে চাই
  3. কোনো কিছুই আমার কাছে অসম্ভব নয়
  4. আমি কোনদিন কোনো পরিস্থিতিতেই জীবনে হার মানবোনা |
  5. I’m the greatest person ever born in the planet earth
  6. I’m a kind hearted

ইত্যাদি এই ধরনের আরো কিছু পসিটিভ কথা তুমি নিজেকে বলতে পারো | তুমি যদি প্রতিদিন এইসব কথা নিজেকে বলতে থাকো তাহলে তোমার Subconscious mind এটা ভাববে যে তোমার মধ্যে সত্যিকারেই এই ability গুলিই আছে |

তুমি যদি যেকোনো Successful মানুষের morning ritual-কে follow করো তাহলে তুমি এটা জানবে যে তাদের সেইসব Rituals গুলির মধ্যে Affirmation একটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে |

যদি আমার কথা তোমার বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে না হয়, তাহলে তুমি একটা কথা ভেবে দেখো যে আমরা বেশিরভাগ মানুষই নিজেদের hopeless মনে করি কেন? এর পিছনে আসল কারনটা কি?

কারনটা হলো আমরা negative Affirmation নিজেদের অজান্তেই দিনের পর দিন বলি নিজেদেরকে | যেমন:

  1. আমার দ্বারা হবেনা
  2. আমি এটা করতে পারবোনা
  3. ওর মত আমি কখনই নয়
  4. আমার নিজের ভিতর কোনো Talent নেই ইত্যাদি আর কত কি |

এইসব কথা অনবরত নিজের সম্বন্ধে বলে যাওয়ার ফলে আমাদের Conscious mind এই কথাগুলি বারবার Subconscious mind-কে পৌছাতে থাকে | আর দেখতে দেখতে এক সময় আসে যখন আমাদের অবচেতন ভাগটি এটা পুরোপুরি ভেবে নেয় যে, আমরা কিছুই করতে পারবোনা, আমরা একটা hopeless মানুষ |

সেইসময় আমাদের কাছে যতই opportunity আসুক না কেন আমরা তা করতে চাইলে Subconscious mind তখন আমাদের চোখের সামনে আমাদের সেইসব negative কথাবার্তা বা দিকগুলিকে তুলে ধরতে থাকে | সেইজন্যই তারপর আমরা ভেবেনি আমাদের দ্বারা কিছুই হওয়ার নয় |

তাই আজ থেকে নিজেকে positive কথা বলে Encourage করতে থাকো | দেখবে তুমি বেশ কিছু সময় পর নিজের Mentality-এর পরিবর্তন নিজে থেকেই অনুভব করতে পারবে |

Tip No. 6 Prayer

প্রতিদিন প্রার্থনা করার মাধ্যমে আমরা যেমন আমাদের জীবনকে সুন্দর করে তুলতে পারি তেমনই এর মাধ্যমে আমরা আমাদের মস্তিষ্কের ক্ষমতাকেও অনেকটা বৃদ্ধি করতে পারি |

জানি, এই কথাটা শোনার পর তুমি হয়তো এটাই ভাবছ “এ আবার কেমন কথা? প্রার্থনার মাধ্যমে কেউ কেমন করে নিজের মস্তিষ্কের ক্ষমতাকে বাড়াতে পারে?”

শুনে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি | কারণ প্রতিদিন প্রার্থনা করার মাধ্যমে আমাদের মনের ভীতর সর্বদা positivity বজায় থাকে, মস্তিষ্ক খুব চাপমুক্ত থাকে, আত্মতুষ্টির (Self-Satisfaction) মাত্রা বৃদ্ধি পায় | এছাড়াও আরো অনেক গুন আছে প্রার্থনার |

Active your subconscious mind Power In bangla

তাই দিনে অন্তত ৩ বার প্রত্যেকটা মানুষের প্রার্থনা করা উচিত | আর প্রার্থনা করা মানে কিন্তু এইসব মোটেই নয়:

  1. হে ভগবান! আমার এটা চাই
  2. হে ভগবান! আমার ওটা দরকার
  3. হেই ভগবান! আমার ওর মত এই জিনিসটা চাই

উম হু! এইসব করলে তার মানে তুমি সেটা প্রার্থনা করছনা মোটেই; শুধু নিজের Ego কে Satisfy করার চেষ্টা করে চলেছো |

এমন ভাবে প্রার্থনা করো যাতে তোমার ভিতরে; পৃথিবীর প্রত্যেকটা মানুষের প্রতি  তথা সমগ্র বিশ্ব-ব্রম্ভান্ডের প্রতি তোমার ভালোবাসা যাতে বারে |

সর্বদা নিজের ও নিজের পরিবারের কল্যাণ ও আরোগ্য কামনা করার পাশাপাশি সমস্ত জীবেরও কল্যাণ ও আরোগ্য কামনা করো |

এটা নিজেকে বারবার বল যে, “আজ আমার কাছে যা কিছু আছে, যেইসব Facilities আছে সেইসবের জন্য আমি আমার পরিবার, আমার ভগবান, এই গোটা Universe-এর কাছে আন্তরিক ভাবে কৃতজ্ঞ”

“আমি যাদেরকে খারাপ কথা বলেছি বা যারা আমাকে খারাপ কথা বলেছে. সবাইকে ক্ষমা করে দিও”

দেখবে তোমার ভিতরে কেমন আমূল পরিবর্তন আসে এইভাবে প্রার্থনা করলে | যারা এভাবেই রোজ প্রার্থনা করেন তাদের Self-Satisfaction- মাত্রা বাকিদের থেকে সাধারনত অনেক বেশি হয় আর তাদের মস্তিষ্কের Subconscious অঞ্চলের ক্ষমতাও অন্য সাধারণ মানুষদের তুলনায় অনেক বেশি হয়ে থাকে |

Read more:- শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবনী

উপরুক্ত এই ৬টি পদ্ধতি মেনে চললেই. যেকোনো মানুষ চাইলে তাদের subconscious mind-এর ক্ষমতাকে বাড়াতে পারবে অনায়াসেই | এছাড়াও তোমরা যদি এই সম্বন্ধে আরো বিষদে জানতে চাও তাহলে তোমরা Dr. Joseph Murphy-এর লেখা The Power of Your Subconscious Mind (Recommended) বইটি পড়তে পারো  | আমি definitely sure তোমরা এই বইটির থেকে আরো অনেক কিছুই জানতে পারবে Subconscious Mind -এর ক্ষমতা সম্পর্কে |

আর সব শেষে আর্টিকেলটি যদি তোমাদের পড়ে ভালো লেগে থাকে তাহলে কমেন্ট করে তোমাদের মতামত আমায় অবশ্যই জানিও | সেই সাথে তোমরা যদি আরো নতুন কিছু point এই বিষয়টি সম্পর্কে জেনে থাকো তাহলে সেটা কমেন্ট করে আমাকে জানিও |

এতক্ষণ সময় দিয়ে পড়ার জন্যে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই তোমাকে/আপনাকে Ajob Rahasya Bolg-এর পক্ষ থেকে |

About the author

admin

Hi Readers I’m Bebeto Raha, a Professional Youtuber & a blogger from Kolkata. My hobby is Playing Guitar, Making Youtube Videos, Watching Films. Also I love to read any kinds of knowledgeable book written by any good author.

View all posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *